Spread the love

The swing

3ft/ 4 ft

Oil on Canvas

ছবি টা এমন কেনো? মেঘ না জল? আকাশ না সমুদ্দুর? কচ্ছপ গুলো কি জলে ভাসছে নাকি আকাশে উড়ছে? ছেলেটা দোল খাচ্ছে দোলনায় দোলনা টাই বা কোথা থেকে এলো? দোলনা টা কি জলের অতলে নাকি মেঘের ওপর মেঘে? ছেলেটা কে? এসব প্রশ্ন থেকে একটা উত্তরই আমার জানা, ছেলেটা আমি আর সময়টা আমার অদ্ভুত ঘুম ঘোর ছেলেবেলা। এই ছবিটাই আঁকবার পেছনে আরেকটা কারণ রয়েছে, আম্মু বার বার বলছিলো মন থেকে একটা ছবি আঁকতে যেমন করে আমি স্বপ্ন দেখি; সেরকম কিছু। অনেকেই ঠিক এই মুহূর্তে ছেলেবেলা নিয়ে কাজ করাটাকে ঠিক গ্রহণ করতে পারেন না। একটাই যুক্তি, তোমার আর বয়স কত। এই কথাগুলো আমার মাথার উত্তর জানালা দিয়ে ঢুকে দক্ষিণ জানালা হয়ে বাহিরে চলে গেছে বরাবরই। আমার কখনোই মনে হয়নি আমার হৃদয় মনন কিংবা প্রানের বয়েস খুব একটা কম। কেনো যেনো বারংবার মনে হয়; আমি এই পৃথিবীর অংশ। হাজার হাজার বছরের লাল নীল হলুদ কিংবা সাদা কালো নির্যাস মেখে আছে প্রাণে। এই মাটি, এই বৃক্ষ, এই শূন্য-মহাশূন্য, প্রতিটি বস্তকণা, প্রতিটি অনুভূতি; সবকিছুতেই মনে হয় আমি মিশে আছি। আমার ভেতরেই সবকিছুর বোধ ঘুরে বেড়ায়। আর এই বোধই বোধ করি তারুণ্য! এজন্মেই তো চোখের পাতা বন্ধ করে কত জগৎ ঘুরে এসেছি, কাটিয়েছি কত সহস্র সময়। ঘড়ি দিয়ে কি তার সবটা, সত্যিই মাপা যায়? এ পৃথিবীর ঘড়ি আসলে কতটা সঠিক? দেহের বয়েসের হিসেব কেনো যেনো ঠিক বুঝে উঠিনা! না জানি কত দেহ, কত পথ, কত পদ্ম, কত সুর, কত ভ্রূণ-ভ্রমান্ড পেরিয়ে আজ এই দেহে ঠাঁই নিয়ে আঁকছি আর লিখছি! নিজেকে বোধ হয় মহাকালের মত প্রাচীন আর এই সময়ের মত উজ্জ্বল যৌবনদদীপ্ত!